তারেক জিয়ার কথায় নাচানাচি করে বিপদে পড়বেন না

তারেক জিয়ার কথায় নাচানাচি করে বিপদে পড়বেন না

মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন বলেন, তারেক জিয়ার কথায় নাচানাচি করে কেউ বিশৃংখলা করে বিপদে পড়বেন না। আপনি বিপদে পড়লে কেউ আপনার পাশে দাড়াবেনা। বিদেশের মাটিতে এসি উপজেলা আওয়ামী লীগ তার দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেবে। লাঠির মাথায় পতাকা বেঁধে মিছিল করে বির্শংখলা করেছেন বলে মনে কইরেন না আপনাদের চালাকি কেউ বুঝবে না। আমরা রাজনীতি করি তাই আপনাদের চালাকি ধরে ফেলেছি।

সারাদেশে বিএনপি জামাতের নৈরাজ্য সন্ত্রাস,ভাংচুর ও অগ্নী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে গতকাল রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকালে গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

এমপি খোকন বলেন, বিএনপির ৪৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর নামের দোয়া মাহফিল নেই, কেক কাটা নেই দলীয় শৃংখলা নেই এসব চালাকি ভুলে যান। কয়েকজন অল্প বয়সী যুবক নিয়ে নাচানাচি করে যেতে পেরেছেন বলে আওয়ামীলীগকে দুর্বল ভাববেননা। আওয়ামীলীগ একটি সৃশৃংখল রাজনৈতিক দল। সারাদেশ যখন উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে উন্নতি করছে ঠিক তখন বিএনপি জামাতের সন্ত্রাসী বাহিনী আন্দোলনের নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করার পায়তারা করছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দৃর্বল নয় ।স্বাধীনতা যুদ্ধে বিরোধীতা করে যখন টিকতে পারেননি, এখনও ষড়যন্ত্র করে টিকতে পারবেননা। আগামীতে ক্ষমতায় এসে গাংনীর মাটিতে দাঁড়িয়ে আওয়ামীলীগকে দেখে নিতে সেই সকল সন্ত্রাসীদের চিহ্ণিত করুন এবং তাদের মাজা ভেঙ্গে দিন।

প্রশাসনসের উদ্দেশ্যে এমপি সাহিদুজ্জামান খোকন বলেন, কোন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী যদি বিএনপি জামাতদের ওপর হামলা করে তাহরে চুপ থাকবেন। কোন আইনী ব্যবস্থা নিবেন না। কোনভাবেই বিএনপি জামাতদের মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে দেয়া যাবেনা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ মানুষের দল,কৃষকের খেটে খাওয়া মানুষের ও শ্রমিক মজুরের দল। এই দল ক্ষমাতায় থাকলে রাতের ঘুম ভাঙ্গে না, রাস্তা ঘাটে মা বোনেরা নির্বিগ্নে চলতে পারে। গরুর গোয়ালে তালা লাগাতে হয়না। শিশূ সন্তানেরা অপহরণ হয়না। আওয়ামী লীগ ক্ষমাতায় থাকলে রাতের আধারে মাঠের ফসল চুরি হয়না, সন্ধায় বোমা ফাটেনা। শিক্ষার্থীদের কেউ উত্যাক্ত করেনা। বাড়িতে বসে বয়স্করা বয়স্ক ভাতা পাচ্ছে,বিধবারা বিধবা ভাতা পাচ্ছে। মানুষ শান্তি আছে বলেই বিএনপি জামাদের সর্মথকদের গায়ে জ্বালা ধরছে। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আছে বলে যুব সমাজের জন্য নানামুখী কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে। বেকার সমস্যা দুর হয়েছে। নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরী হয়েছে। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি হচ্ছে । এই

সরকারকে আগামী নির্বাচনে আবারও ভোট দিয়ে নির্বাচিত করলে আপনারা ভাল থাকবেন।  রোববার বিকেলে গাংনী রেজাউল চত্বরে গাংনী উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত বিক্ষোভ

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মকলেচুর রহমান মুকুল।
যুবলীগ নেতা রাহিবুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সম্পাদিকা এমপি পত্ন লাইলা আরজুমান বানু, জেলা আওয়ামীলীগের সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু, উপজেলা স্বেচ্ছা সেবক লীগের সভাপতি আবুল বাসার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি মাস্টার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, , জেলা পরিষদের সাবেক মহিলা সদস্য শাহানা ইসলাম শান্তনা, সাবেক ছাত্র নেতা সাইফুজ্জামান শিপু, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মাজেদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শুভ আহাম্মেদ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন উপ যুবলীগ রাহিবুল ইসলাম। গাংনী উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও মহিলা আওয়ামীলীগের পৃথক পৃথক মিছিল সমাবেশে অংশ গ্রহন করেন।